স্বামীর ফ্ল্যাট থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর আদাবরের একটি ফ্ল্যাট থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তাঁর নাম জান্নাতুল মাওয়া (২৩)। সোমবার মোহাম্মদীয়া হাউজিং সোসাইটির একটি ভাড়া ফ্ল্যাট থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। জান্নাতুল মাওয়া তাঁর স্বামী শরিফুল ইসলাম সুমনের (৩৭) সঙ্গে ওই ফ্ল্যাটে থাকতেন।

আদাবর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহিদুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে ওই শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করে থাকতে পারেন। তবে নিশ্চিত হতে লাশ ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। পরিবারের বরাত দিয়ে ওসি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে জান্নাতুলের সঙ্গে তাঁর স্বামীর ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে তিনি রুমের বাইরে এসে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে দেন। এতে তাঁর স্বামী বের হতে পারেনি। পরে পাশের রুমে গিয়ে তিনি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

পুলিশ জানায়, শরিফুল ইসলাম একজন ব্যবসায়ী। তাঁর বাড়ি কুষ্টিয়ায়। আর জান্নাতুলের বাড়ি যশোর জেলার অভয়নগর এলাকায়। এক বছর আগে তাঁদের বিয়ে হয়।

এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় সঠিক তদন্তের দাবি জানিয়েছেন সহপাঠীরা। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে তাঁরা এ দাবি জানান।

মানববন্ধনে সহপাঠীরা বলেন, ‘আমরা চাই জান্নাতুল মাওয়ার মৃত্যুর পেছনের ঘটনা বের হয়ে আসুক। হাসিখুশি একটা মেয়ে কোন ধরনের চাপে পড়ে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিল, তা তদন্তে বেরিয়ে আসুক। এখন পর্যন্ত আমরা খবর পেয়েছি, ময়নাতদন্ত হতেও পারে, না–ও হতে পারে। আমরা চাই ময়নাতদন্ত করে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা, সেই সত্য বেরিয়ে আসুক।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.